অমুসলিমদের পদচারণে মুখর কাতারের মসজিদগুলো

0
55

(দিনাজপুর২৪.কম) কাতার বিশ্বকাপ দেখতে আসা অমুসলিম পর্যটকদের আকর্ষণের জায়গা হয়ে উঠেছে কাতারের মসজিদগুলো। আরব সংস্কৃতি ও ইসলামি জীবনধারা সম্পর্কে জানতে তাঁরা মসজিদমুখী হচ্ছেন বলে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদপত্র ‘দ্য পেনিনসুলা কাতার’। দোহার কাতারা কালচারাল ভিলেজের মসজিদটির নাম গ্রেট কাতারা ব্লু মসজিদ। এই মসজিদে প্রতিদিন হাজার হাজার অমুসলিম পর্যটক আসছেন এবং আরব ও ইসলামি সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন। মসজিদের স্বেচ্ছাসেবক উম্মে আহমদ বলেন, ‘মসজিদের পাশে কালচারাল ভিলেজ তৈরির উদ্দেশ্যই ছিল কাতারি সংস্কৃতির সঙ্গে বিদেশি পর্যটকদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া। মুসলিমদের জীবনাচার নিয়েই দর্শক বেশি প্রশ্ন করছেন। অনেক দর্শনার্থী স্বীকার করেছেন যে ইসলাম ও মুসলিম সম্পর্কে তাঁদের আগের ধারণা সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে।’

সংস্কৃতির মেলবন্ধন এবং বিশ্বের বিভিন্ন ধর্মের মানুষের সঙ্গে বোঝাপড়া নিশ্চিত করতে আরও এক চমৎকার আয়োজন হলো ‘আস্ক মি অ্যানিথিং’। উম্মে আহমেদ ও তাঁর সঙ্গীরা এই প্রকল্পে কাজ করছেন। মসজিদের একটি লাউঞ্জে লেখা রয়েছে, ‘আমাকে কাতারের নারী সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন’। লাউঞ্জে বসে বিদেশি দর্শনার্থীরা চা-কফি পান করার সুযোগ পাচ্ছেন এবং নারী স্বেচ্ছাসেবীরা তাঁদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও দিচ্ছেন। ইসলামকে পরিচয় করিয়ে দিতে কাতার গেস্ট সেন্টারের কর্মচারী ও ধর্মপ্রচারকেরা মসজিদের দরজায় উপস্থিত থাকছেন। তাঁরা অমুসলিম দর্শনার্থীদের স্বাগত জানাচ্ছেন এবং মসজিদ সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন। ভেতরে প্রবেশ করিয়ে মসজিদের অভ্যন্তরীণ পরিবেশ সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছেন।

বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে কাতারের ইসলামবিষয়ক মন্ত্রণালয় অমুসলিম পর্যটকদের ইসলাম সম্পর্কে জানাতে বেশ কিছু উদ্যোগ হাতে নেয়। ইসলামের পরিচিতমূলক ছয়টি ভাষার বই বিতরণ, মসজিদগুলোতে বিশ্ববরেণ্য ইসলামিক স্কলারদের লেকচার প্রদান এবং সড়কে মহানবী (সা.)-এর  বাণীসংবলিত বিলবোর্ড স্থাপন সেসব উদ্যোগের মধ্যে উল্লেখযোগ্য। -অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here