আমরা ঘরে বসে থাকলেও শেখ হাসিনা ক্ষমতায় যেতে পারবেন না : গয়েশ্বর

0
63

(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপি সরকারের চক্রান্তে না পড়লে ঘরে বসে থাকলেও আগামী নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় যেতে পারবেন না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

আজ শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। ‘ডা. জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহার এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে’ এ সভার আয়োজন করা হয়।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘সরকারের চক্রান্তের উপাদানে যদি আমরা (বিএনপি ও সরকারবিরোধী অন্যান্য রাজনৈতিক দল) না পড়ি, তাহলে আমরা ঘরে বসে থাকলেও শেখ হাসিনা ক্ষমতায় যেতে পারবেন না এবং আগামী জাতীয় নির্বাচনও করতে পারবেন না।’

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে অংশ নেন জাতীয় পার্টির ( কাজী জাফর) মহাসচিব আহসান হাবিব লিংকন। তিনি বলেন, “২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে আমরা আপনাকে (শেখ হাসিনা) বিশ্বাস করেছিলাম। আপনি বললেন-‘আমি প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুকন্যা। আপনারা আমার সঙ্গে আসেন; আলোচনা করে দেশে কীভাবে একটা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা যায়।’ আমরা বিশ্বাস করে আপনার অফিসে গেলাম। আপনি এমনভাবে বিশ্বাসঘাতকতা করলেন যে দিনের ভোট রাতে করলেন।”

আহসান হাবিবের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে গয়েশ্বর বলেন, ‘আমি লিংকনকে বলব, যারা শেখ হাসিনার কথা বিশ্বাস করে, তারা মানুষ না।’ তিনি বলেন, ‘প্রাসাদ ষড়যন্ত্র কি যারা প্রাসাদের মধ্যে থাকে তাদের মধ্যেই হয়? প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের সঙ্গে আমরা কেউ অংশগ্রহণ করছি কিনা?’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আন্দোলন করলাম দিনের বেলায়। আর রাতের বেলায় তার (সরকার প্রধান) সঙ্গে বৈঠক করলাম, আসন ভাগাভাগি করলাম। আমার মামলাটা একটু দেখবেন-এসব কথাবার্তা যদি চালাচালি করেন রাতের অন্ধকারে বসে, তাহলে সাধারণ নেতাকর্মী বুঝবে না।’ বিএনপি আন্দোলন করবে, এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই বলে উল্লেখ করেন গয়েশ্বর।

গয়েশ্বর আরও বলেন, আন্দোলন করার লোকের কোনো অভাব নেই। আন্দোলনকে ভন্ডুল করতে অনেক লোকের দরকার নেই; সেই লোকগুলো আমাদের আশপাশে আছে। সেই লোকদের গোপনে, আড়ে কথাবার্তা চলছে কিনা। কার কাছে শেখ হাসিনা কথা দিয়েছিলেন ৬০-৭০টা আসন দেবেন? সেই লোকটা কে? বিরোধীদলগুলোর আন্দোলন নিয়ে সরকার ভীত না বলেও মনে করেন গয়েশ্বর।

তিনি বলেন, ‘কারণ, আন্দোলনকে দমন করতে সরকারের বিভিন্ন বাহিনী রয়েছে। শেখ হাসিনা বেকায়দায় আছেন সারাবিশ্বে তার প্রতারণা, দুর্নীতি, তার ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্র পরিচালনা, গুম, খুন, বিনা বিচারে হত্যা নিয়ে।‘ নিরপেক্ষ সরকারের পাশাপাশি সংসদ ভেঙে দেওয়ার দাবি জানান বিএনপির এই নেতা।

সংগঠনের উপদেষ্টা সাঈদ আহমেদ আসলামের সভাপতিত্বে ও সহসভাপতি শাহাদাত হোসেনের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ প্রমুখ। -অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here