আরও ক্ষমতা চান ডিসিরা

0
59

(দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম) বর্তমানে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) সাধারণ কার‌্যাবলির মধ্যে ৬২টি বিষয় রয়েছে। প্রত্যেক বিষয়ে আবার রয়েছে একাধিক কমিটি-উপকমিটি। এদের কার্যক্রম তদারকি করেন ডিসিরা। এসব কার্যক্রমের পাশাপাশি কিছু আইন ও বিধিবিধান সংস্কারের মাধ্যমে নিজেদের ক্ষমতা আরও বাড়িয়ে নেওয়ার একাধিক প্রস্তাব এসেছে ডিসিদের কাছ থেকে। নতুন কিছু সুযোগসুবিধার প্রস্তাবও করেছেন তারা। ডিসি সম্মেলনে আলোচনার জন্য কার্যপত্রে রাখা ২৬৪টি প্রস্তাব পর্যালোচনা করে এই ধারণা পাওয়া গেছে।

আজ মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী সম্মেলন। ইতোমধ্যে সম্মেলনের সূচি প্রকাশ করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এবারের সম্মেলনে ২১টি কার্য অধিবেশনসহ ২৫টি অধিবেশন থাকবে। এর মধ্যে প্রথম দিন ৭, দ্বিতীয় দিন ৮ এবং তৃতীয় দিন ১০টি। প্রস্তাবসংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সচিবরা অধিবেশনে উপস্থিত থাকবেন। এবারের সম্মেলন হবে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে। প্রথম দিন সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি সম্মেলন উদ্বোধন করবেন। ওইদিন সন্ধ্যা ৬টায় ভার্চুয়ালি দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। দ্বিতীয় দিন বিকাল সোয়া ৪টায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে স্পিকার শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন। সন্ধ্যা ৬টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন প্রধান বিচারপতি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রিসভার সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদের কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। তবে করোনার কারণে অতিথি উপস্থিতি কম হতে পারে।

ডিসিদের কয়েকটি প্রস্তাব পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, তারা আরও ক্ষমতা চান। যেমন- দ-বিধি ১৮৬০-এর ২২৮ ধারা মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯-এর তফশিলে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছেন নাটোরের ডিসি। প্রস্তাবের পক্ষে বলা হয়েছে, ফৌজদারি কার্যবিধি ১৮৯৮-এর ৬ (২) ধারা অনুযায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত রাষ্ট্রের স্বীকৃত একটি ফৌজদারি আদালত। কিন্তু এ আদালতের আদেশ অমান্যকারীদের বিষয়ে সরাসরি কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন না নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। আদালত পরিচালনা ও তার যথাযথ কার্যকারিতা নিশ্চিত করতে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা অসুবিধার সম্মুখীন হন।

দেশের সরকারি-বেসরকারি সব বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সিন্ডিকেট ও পরিচালনা কমিটিতে ডিসিদের অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব করেছেন তারা।

বর্তমানে ডিসিরা ২২টি পণ্যের লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন। এ ক্ষমতা আরও বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। জাতিসংঘ শান্তি মিশনে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তার সুযোগ সৃষ্টি করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব দিয়েছেন রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত মোট ১৪টি প্রস্তাব দিয়েছেন ডিসিরা। এ ছাড়া উপজেলা পরিষদের কর্মচারী বদলির ক্ষমতা, প্রকল্প ছাড়া সব ধরনের তৃতীয় শ্রেণির নিয়োগ ডিভিশনাল সিলেকশন বোর্ডের অধীন আনা, ডিসির স্বেচ্ছাধীন তহবিলের বরাদ্দ বাড়ানো, জেলা পর্যায়ে উন্নয়ন পরিকল্পনা কমিটির নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা চেয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছেন তারা।

এছাড়া জেলা পর্যায়ে এসএমই ও ক্ষুদ্রঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে সমন্বয়ের জন্য ডিসিকে প্রধান করে জেলা কমিটি গঠনে প্রস্তাব এসেছে। ক্ষুদ্র ঋণদাতা এনজিওগুলোর ডিসির প্রত্যয়নপত্র নেওয়া বাধ্যতামূলক করার পক্ষে প্রস্তাব তুলেছেন তারা। জেলায় শ্রমিক-মালিক সংকট নিরসনে সমন্বয় কমিটি গঠন, অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য ডিসির নেতৃত্বে জেলা কমিটি গঠন, বাণিজ্য মেলা আয়োজনে ডিসির অনুমতি নেওয়ার বিধান যোগ এবং জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও সার্কিট হাউসের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা প্রদানের সুপারিশ করে প্রস্তাব পাঠিয়েছেন ডিসিরা।-

সূত্র -আমাদের সময়

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here