ঈদের গানের বাজার নিয়ে শঙ্কা

0
83
এদিকে গান করাটা এখন শুধুমাত্রই লস প্রজেক্ট- এমন কথাই বলছেন পুরনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলো। সাউন্ডটেক, লেজারভিশন, জি-সিরিজ, সিএমভি, সিডি চয়েস, ধ্রুব মিউজিক স্টেশন, ঈগল মিউজিক, মাই সাউন্ড, সুরাঞ্জলিসহ বেশির ভাগ প্রথম সারির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ইউটিউব চ্যানেলেই এখন ঠাঁই পাচ্ছে নাটক আর নাটক। উৎসবে খুব স্বল্প পরিসরে গান করছে প্রতিষ্ঠানগুলো। পরিবর্তে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক নাটক প্রকাশ হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবারের ঈদেও বেশির ভাগ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানেরই গান প্রকাশের সংখ্যা হাতে গোনা। বরঞ্চ তার বদলে নাটকের তালিকা বেশ দীর্ঘ। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানগুলোর এই নাটকের দিকে ঝোঁকার বিষয়টিকে গানের জন্য ‘অশনি সংকেত’ বলেও মনে করছেন দেশের শিল্পী-গীতিকার ও সংগীত পরিচালকরা। এদিকে আসছে ঈদের অডিও বাজার নিয়েও রয়েছে শংঙ্কা। কারণ এবারের ঈদের আর বাকি মাত্র এক মাস। এই সময়ে জমে ওঠার কথা ছিল স্টুডিওপাড়াগুলো। কিন্তু নতুন গানের আয়োজন সেভাবে নেই স্টুডিওগুলোতে। অন্যদিকে করোনার ফলে থেমে থেমে স্টেজ শো আয়োজন চলছে। যার কারণে এরইমধ্যে অনেক সংগঠন কিংবা শিল্পী-মিউজিশিয়ান পেশাও বদলেছেন। যদিও এখন শো আয়োজন শুরু হয়েছে। তারপরও পুরোদমে শো শিল্পীরা করতে পারছেন না দেশ-বিদেশে। সব মিলিয়ে সংগীতাঙ্গনে একটা অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে, যা কবে নাগাদ কাটবে বলা মুশকিল। এদিকে বিষয়টি নিয়ে জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী ফাহমিদা নবী বলেন, আমি মনে করি ভালো গানের আবেদন কখনো কমে না। ভালো গান হলে সেটা মানুষ শুনবেই আর ব্যবসাও হবে। হ্যাঁ, হতে পারে নাটকে ব্যবসাটা বেশি। এ কারণেই প্রতিষ্ঠানগুলো নাটক বেশি তৈরি করছে। কিন্তু গানের দিকেও তাদের নজর দিতে হবে। কারণ গান দিয়েই কিন্তু প্রতিষ্ঠা পেয়েছে তারা। আমি মনে করি যদি কোনো সমস্যা থেকে থাকে তবে কোম্পানি, শিল্পী, সুরকার, গীতিকার সবাই বসে বিয়ষটির সুরাহা করা যায়। কারণ এ আমরা সবাই কিন্তু একে অপরের পরিপূরক। কাউকে ছাড়া কারও চলবে না। বিষয়টি নিয়ে সংগীত তারকা আসিফ আকবর বলেন, এটা আসলে নিজেকে তৈরি করার সময়। শুধু কোম্পানির ওপর নির্ভর থাকলে চলবে না। আমি কিন্তু আমার ইউটিউব চ্যানেলে গান প্রকাশ শুরু করেছি অনেক আগে থেকে। পাশাপাশি আমি বিভিন্ন পুরোনো ও নতুন কোম্পানির গান করে গেছি। আমার গান দিয়ে অনেক নতুন কোম্পানির যাত্রা শুরু হয়েছে গত কয়েক বছরে। সুতরাং, নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। আর কোম্পানির ওপর নির্ভরতা কমাতে হবে। নিজেকে সেভাবে যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। সময়ের সঙ্গে চলাটা জরুরি। সেটা যদি কোনো প্রতিভাবান শিল্পী করতে পারেন তবে কোনো সমস্যা হবে না। -নিউজ ডেস্ক
মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here