দিনাজপুরের দেশসেরা টসটসে লোভনীয় লিচু বাজারে

0
84
-ছবি সংগ্রহীত
স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) অবশেষে জমে উঠেছে দেশসেরা টসটসে লোভনীয় লিচুর বাজার। নানা রং এবং মনকাড়া স্বাদের লিচু মন কেড়েছে সবার। রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলে যাচ্ছে লিচু। এবারো লিচুর বাম্পার ফলন হয়েছে। দামও হাতের নাগালে।  দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে, দিনাজপুরে লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। এবার দিনাজপুরে লিচুর উৎপাদন হবে ৩০ মেট্রিক টনের বেশি। সব মিলিয়ে এ মৌসুমে ৬০০ কোটি টাকার ওপরে লিচু বিক্রি হবে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দিনাজপুর সদর উপজেলার মাসিমপুর ও বিরলের মাধববাটি এলাকার লিচু সারা দেশে বেশি সমাদৃত। এ এলাকার উৎপাদিত লিচুগুলোর মধ্যে মাদ্রাজি, চায়না থ্রি ও বেদানা ইতোমধ্যে বাজারে উঠতে শুরু করেছে। তবে বোম্বাই, কাঁঠালি ও হাঁড়িয়া জাতের লিচু আরও কিছুদিন পরে বাজারে আসবে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
সরেজমিন দেখা গেছে, দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর-এ-শহীদ বড় ময়দানে লিচুর বাজার জমে উঠেছে। ভ্যান ও অটোরিকশার ওপর থেকেই লিচু বেচা-কেনা করছেন অনেক পাইকার। পাশাপাশি ক্রেতা-বিক্রেতাদের হাঁকডাকে সরগরম হয়ে উঠেছে লিচুর বাজার। এ ছাড়া দিনাজপুরের হাটেগঞ্জে, পথেপ্রান্তরে, সবখানেই দেশসেরা রসালো বিভিন্ন জাতের লিচুর পসরা সাজিয়ে বসেছে ব্যবসায়ীরা।
দিনাজপুরে অস্থায়ী এই লিচুর বাজারে এখন পাওয়া যাচ্ছে মাদ্রাজি, বেদানা ও চায়না থ্রি জাতের লিচু। আমদানিও অনেকটা ভালোই বলা চলে। তবে এবার দাম বেশ চড়া। পাইকারি প্রতি হাজার মাদ্রাজি লিচু বিক্রি হচ্ছে আড়াই হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা দরে। বেদানা জাতের প্রতি হাজারে বিক্রি হচ্ছে ৯ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা আর চায়না থ্রি প্রতি হাজার বিক্রি হচ্ছে ১৩ হাজার টাকা থেকে ১৬ হাজার টাকা পর্যন্ত। তবে এ দাম আরও বাড়তে থাকবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।
ফল ব্যবসায়ীরা বলেন, খুচরা বাজারে একটি দোকান থেকে প্রতিদিন গড়ে লিচু কেনা-বেচা হচ্ছে প্রায় আড়াই লাখ টাকার। এই লিচুর খুচরা বাজারে ৮০টি দোকান আছে। আর পাইকারি বাজারে রয়েছে ৪০টি দোকান। এই পাইকারি বাজারে একটি দোকান থেকে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার লিচু কেনা-বেচা হয় বলে জানান ব্যবসায়ীরা।
এদিকে দিনাজপুর থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে প্রিয়জনদের লিচু পাঠাতে কুরিয়ার কোম্পানির বেঁধে দেওয়া অযৌক্তিক সার্ভিস চার্জের কবলে পড়ে বিপাকে আছেন স্থানীয় স্বজনরা।
একজন ভুক্তভোগী জানান, দুইশ লিচু ঢাকায় পাঠাতে একটি কুরিয়ার কোম্পানিকে দিতে হচ্ছে ৫শ টাকা আর হোম ডেলিভারিতে খরচ নিচ্ছে ৭শ টাকা। এটিকে দিনদুপুরে ডাকাতির মতো অবস্থা ব্যক্ত করে এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগীরা। দিনাজপুর ফল ব্যবসায়ী দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. রুস্তম আলী ও সাধারণ সম্পাদক রাজিউর রহমান বিপ্লব দিনাজপুর২৪.কম কে জানিয়েছেন, লিচুর ফলন ভালোই হয়েছে। দাম গতবারের তুলনায় একটু বেশি। কেননা, এবার বাগান থেকেই বেশি দামে লিচু কিনতে হচ্ছে আমাদের। দাম বেশি হলেও ভালো লিচুই বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তারা।
দেশসেরা রসালো টাটকা টসটসে লিচু খেতে অনেকেই বিভিন্ন জেলা থেকে দিনাজপুরে অবস্থান করছেন। আগামীকাল শুক্রবার দিনাজপুর-ঠাকুরগাও-পঞ্চগড়ে সরকারি প্রাইমারী শিক্ষক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এরই মধ্যে পরীক্ষার পাশ থেকে শুরু করে বিভিন্ন তদবীরের জন্য ইতোমধ্যে কয়েক কোটি টাকার লিচু দিনাজপুর থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলে গেছে উপহার হিসেবে।
মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here