নজরদারি সফটওয়্যার থেকে মুক্তির উপায় কী

0
129
প্রযুক্তির এই যুগে নজরদারি এক ভয়াবহ সংকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। ছবি: পেক্সেলস ডটকমের সৌজন্যে

(দিনাজপুর২৪.কম) এমন তো হয়ই যে কেউ কাউকে এড়াতে চাইছে, কিন্তু কোনোভাবেই পারছে না। যেখানেই যায়, ছায়া হয়ে অনুসরণ করে সেই অনাকাঙ্ক্ষিত ব্যক্তি। থানা-পুলিশ করেও অনেক সময় সুফল পাওয়া যায় না। আগে হয়তো কাজটি করা হতো কোনো ব্যক্তিকে অনুসরণের দায়িত্ব দিয়ে। এখন সেই জমানা নেই। প্রযুক্তিই এখন এই অনুসরণকারীর দায়িত্ব নিয়েছে, যাকে বলা হচ্ছে স্টকারওয়্যার। সাদা বাংলায় বললে নজরদারি সফটওয়্যার। আপনাকেও এমন কোনো সফটওয়্যার অনুসরণ করছে না তো? চিনবেন কীভাবে?

নজরদারি সফটওয়্যার বা স্টকারওয়্যার বাণিজ্যিকভাবে পাওয়া যায়। অর্থাৎ, যে কেউ চাইলে এমন একটি সফটওয়্যারের সেবা কিনে কাউকে অনুসরণের কাজে লাগাতে পারেন। এর মাধ্যমে মূলত লক্ষ্যবস্তু ব্যক্তির ব্যবহার করা বিভিন্ন ডিভাইসে নজর রাখা হয়। বলা অবান্তর, এ ক্ষেত্রে লক্ষ্যবস্তুর কোনো সম্মতি নেওয়া হয় না।

এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে লক্ষ্যবস্তুর ফোনে আসা মেসেজ তো বটেই, অবস্থান, ছবি ও গুরুত্বপূর্ণ নথিও হাতিয়ে নেওয়া যায়। এমনকি ফোনে আড়ি পাতাও সম্ভব।

প্রযুক্তির এই যুগে এমন নজরদারি এক ভয়াবহ সংকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ নিয়ে ২০১৯ সাল থেকে কাজ করছেন ইভা গালপেরিন নামের এক নারী। ওই বছর তিনি কোয়ালিশন অ্যাগেইনস্ট স্টকারওয়্যার (সিএএস) নামের একটি সংগঠন গড়ে তোলেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এ সম্পর্কিত প্রতিবেদনে বলা হয়, ইভা গালপেরিন ধর্ষণের শিকার এমন কিছু নারীর ভোগান্তি সম্পর্কিত প্রতিবেদন হাতে পেয়েছিলেন, যাঁরা দিনের পর দিন নিপীড়কের হাত থেকে বাঁচার শত চেষ্টা করেও পারছিলেন না। সেই নিপীড়কেরা তাঁদের ছায়ার মতো অনুসরণ করছিল। এ জন্য তারা প্রযুক্তি ব্যবহার করছিল।

এ বিষয়ে ইভা গালপেরিন বিবিসিকে বলেন, যখন কেউ আপনার অজ্ঞাতে ফোনে প্রবেশ করবে, তখন এর অপব্যবহারের মাত্রা হয় ভয়াবহ রকমের। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় ব্যক্তিগত ছবির কথা। এসব ক্ষেত্রে সবার আগে ব্যক্তিগত ছবি হাতিয়ে নেয় নিপীড়কেরা। এরপর শুরু হয় এসব ছবি ফাঁস করে দেওয়ার হুমকি। পারিবারিক নির্যাতনের ঘটনাগুলোর একটি বড় অংশের ক্ষেত্রেই এ ধরনের সফটওয়্যারের ব্যবহার দেখা গেছে।

সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান নর্টন ল্যাবের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, স্টকারওয়্যারের ব্যবহার বৃদ্ধি একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গোটা বিশ্বেই এই সংকট ক্রমবর্ধমান। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০২১ সালের মে মাস পর্যন্ত সময়ে এ ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে ৬৩ শতাংশ। এর কারণ হিসেবে করোনাকালে বিভিন্ন বিধিনিষেধে মানুষের ঘরে বেশি সময় কাটানোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। কারণ এই সময়ে ঘরে থাকা সঙ্গীর ব্যক্তিগত ডিভাইস হাতের কাছেই পাওয়া গেছে।

বিবিসি জানায়, গত দুই বছর ইভা গালপেরিন বিভিন্ন অ্যান্টিভাইরাস কোম্পানির সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি বোঝানোর চেষ্টা করেছেন, এ ধরনের সফটওয়্যারকে অ্যান্টিভাইরাস কোম্পানিগুলোর আরও গুরুত্বের সঙ্গে দেখা উচিত। কিন্তু এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলো অনেকটাই উদাসীন ভাব দেখিয়ে আসছে। তারা স্টকারওয়্যারকে অনাকাঙ্ক্ষিত প্রোগ্রাম বা ম্যালওয়্যার হিসেবে দেখতে রাজি নয়, যেহেতু এর বৈধ ব্যবহারও রয়েছে।

নিরীহ নানা অ্যাপের ভেক ধরে বিভিন্ন ডিভাইসে জায়গা করে নেয় স্টকারওয়্যার বা নজরদারি সফটওয়্যারগুলোনিরীহ নানা অ্যাপের ভেক ধরে বিভিন্ন ডিভাইসে জায়গা করে নেয় স্টকারওয়্যার বা নজরদারি সফটওয়্যারগুলো। ছবি: পেক্সেলস ডটকমের সৌজন্যেচলতি বছরের অক্টোবরে গুগল অবশেষে বেশ কিছু অ্যাপের বিজ্ঞাপন তাদের সাইট থেকে সরিয়ে নেয়, যেগুলো সঙ্গীর ফোনে নজর রাখার বিষয়ে ওকালতি করে আসছিল। মূলত অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানের চলাফেরা এবং সাইবার জগতে তাদের কার্যক্রমের ওপর নজর রাখার জন্য অভিভাবকদের মধ্যে স্টকারওয়্যারের একরকম চাহিদা রয়েছে। কিন্তু এটি শেষ পর্যন্ত এখানে শেষ হয় না। এগুলোর সর্বোচ্চ ব্যবহার করে নিপীড়কেরাই, যার সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী হয় নারীরা।

এমনই একটি অ্যাপ হচ্ছে স্পাইফোন, যা গত সেপ্টেম্বরে নিষিদ্ধ করেছে মার্কিন ফেডারেল ট্রেড কমিশন (এফটিসি)। এ ধরনের কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ বিভিন্ন সময়ে নেওয়া হলেও এখনো অনলাইনে এমন বহু স্টকারওয়্যার অ্যাপের খোঁজ পাওয়া যায়। শুধু তাই নয়, এগুলো ব্যবহারের পদ্ধতি সম্পর্কে টিউটোরিয়ালও পাওয়া যায় সহজেই।

ইভা গালপেরিনের ভাষ্যমতে, এখন এফটিসি সেই সব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে তদন্ত করছে, যারা এ ধরনের অ্যাপ তৈরির সঙ্গে যুক্ত। তিনি এই প্রযুক্তিকে ‘ভীষণ শক্তিশালী’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

নানা মোড়কে থাকতে পারে
দেখতে হয়তো ক্যালকুলেটর অ্যাপের মতো, কিন্তু কাজ করে নজরদারির—এমনও হতে পারে। নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এমন একটি উদাহরণ উল্লেখ করে বলা হয়, গুগল অ্যাপ স্টোর থেকেই বিনা মূল্যের একটি কিলগার অ্যাপ নামিয়ে দেখা গেছে, তা ক্যালকুলেটর বা ক্যালেন্ডারের ভেক ধরে থাকছে। আর নামিয়ে নেওয়ার পর থেকেই ফোনে চাপা প্রতিটি বাটনের খোঁজ রাখছে সে। মূলত এ ধরনের অ্যাপ অভিভাবকেরা সন্তানের ওপর নজর রাখতে ব্যবহার করেন। কিন্তু এগুলো যে কারও ব্যক্তিগত জীবন বিষিয়ে তোলার জন্য যথেষ্ট। আগে এ ধরনের অ্যাপের সংখ্যা কয়েক শ হলেও এখন এমন অ্যাপ রয়েছে হাজার হাজার।

এ ধরনের অ্যাপের নাম সাধারণত খুব নিরীহ ধাঁচের হয়। নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে উদাহরণ হিসেবে ‘মোবাইলটুল’ ‘এজেন্ট’, ‘সারবেরাস’ ইত্যাদি নামের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বর মাসে যুক্তরাষ্ট্রের এফটিসি ‘স্পাইফোন’ নামের একটি অ্যাপ বাজারে ছাড়ার দায়ে এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সাপোর্ট কিংকে নিষিদ্ধ করেছে।

প্রযুক্তিবান্ধব হলেই কি চেনা যাবে?
এই অ্যাপগুলো এমনভাবে তৈরি করা, যাতে এগুলো সহজে শনাক্ত করা না যায়। এমনকি প্রযুক্তিবান্ধব অনেক ব্যক্তির পক্ষেও এগুলোর উপস্থিতি টের পাওয়া সম্ভব নয়। এমনই এক ব্যক্তির কথা উল্লেখ করা হয়েছে বিবিসির প্রতিবেদনে। সেখানে তাঁর ছদ্মনাম হিসেবে শার্লট বলে উল্লেখ করা হয়েছে, যিনি একজন সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষক।

বিবিসিকে শার্লট বলেন, বাগ্দানের পর থেকেই তিনি বেশ কিছু উদ্ভট বিষয় লক্ষ করতে শুরু করেন। ফোনের ব্যাটারি দ্রুত নিঃশেষ হওয়া, ফোন হঠাৎ করেই রিস্ট্রার্ট নেওয়া থেকে শুরু করে নানা অদ্ভুত ঘটনা ঘটতে থাকে তাঁর সঙ্গে। এ দুটিই নজরদারি সফটওয়্যারের আওতায় পড়ে যাওয়ার প্রাথমিক ইঙ্গিত। কিন্তু এই ইঙ্গিতও যথেষ্ট ছিল না বিষয়টি বোঝার জন্য। তাঁর সঙ্গীই তাঁকে একসময় জানান, তিনি সব সময় জানতেন শার্লট কখন কোথায় থাকেন।

করণীয় জানতে শার্লট পরে হ্যাকারদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তাঁর সঙ্গীও এমন একটি ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত। তিনিও এর কিছু ধরনধারণ জানতেন। কিন্তু যখন আলাপ করলেন, দেখলেন সঙ্গীর ওপর নজর রাখার বিষয়ে সম্মতি প্রদানের একটি ভয়াবহ সংস্কৃতি রয়েছে। এটি কোনো অপরাধই যেন নয়। এটি তাঁকে ভীষণভাবে আহত করে। এ থেকেই তিনি সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করার আগ্রহ পান, যেন এই খাতকে অন্যভাবে উপস্থাপন করতে কাজ করা যায়।

কীভাবে শুরু হয়?
ইন্টারনেট ঘাঁটলে এমন বহু সফটওয়্যার-সেবার খোঁজ পাওয়া যাবে, যা শুধু ফোন নম্বর পেলেই লক্ষ্যবস্তুর ওপর নজরদারি শুরু করতে পারে বলে দাবি করে। এ জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সিতে কয়েক শ ডলার মাত্র ব্যয় করতে হয়। এসব সেবাদাতা এমন সব দাবি করে, যে ধরনের নজরদারির সক্ষমতা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর হাতে রয়েছে। পেগাসাসের কল্যাণে এই সক্ষমতার মাত্রা নিয়ে কারও অন্তত সন্দেহ থাকার কথা নয়। যদিও এগুলো ঠিকঠাক কাজ করে কি না, এ নিয়ে সংশয়ও রয়েছে সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের।

শার্লটের ভাষ্যমতে, এ ধরনের নজরদারি সফটওয়্যার সাধারণত সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অনেক সময় কিছু মেসেজ পাঠিয়ে কোনো একটি লিংকে ক্লিক করতে বলা হয় অথবা নানা ধরনের চটকদার অ্যাপের মাধ্যমেও এটি ঘটতে পারে। এমন কিছু শনাক্ত করা মাত্রই তা ডিলিট করার পরামর্শ দেন তিনি। শার্লট বলেন, ‘যত ধরনের সতর্কতাই দিক না কেন, ডিলিটের ক্ষেত্রে ঘাবড়াবেন না।’

ক্যালকুলেটর বা ক্যালেন্ডারের ভেক ধরে থাকা এই স্টকারওয়্যারগুলো ডিভাইসে আপনার প্রতিটি কি-স্ট্রোকের দিকে নজর রাখেক্যালকুলেটর বা ক্যালেন্ডারের ভেক ধরে থাকা এই স্টকারওয়্যারগুলো ডিভাইসে আপনার প্রতিটি কি-স্ট্রোকের দিকে নজর রাখে। ছবি: পেক্সেলস ডটকমের সৌজন্যেখেয়াল রাখুন
নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে এ বিষয়ে কিছু সতর্কতা অবলম্বনের কথা বলা হয়েছে—
১. আপনার ডিভাইসের ব্যাটারি দ্রুত নিঃশেষ হচ্ছে কি না। স্টকারওয়্যার আপনার অজান্তে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে বলেই হয়তো এমনটা হচ্ছে।
২. ডিভাইসটি বিশ্বস্ত স্টকারওয়্যার ডিটেক্টর দিয়ে স্ক্যান করুন। এ ক্ষেত্রে ম্যালওয়্যারবাইটস, সারটো, নর্টনলাইফলক, লুকআউট সহায়ক হতে পারে।
৩. ডিভাইসে থাকা প্রতিটি অ্যাপ লক্ষ করুন। এমন কিছু কি আছে, যা আপনি ইনস্টল করেননি। সন্দেহজনক মনে হলে ডিলিটের আগে ভেবে নিন। এটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থায় অভিযোগ জানাতে চাইলে প্রমাণ হিসেবে কাজে লাগতে পারে।
৪. অনলাইনে নিজের বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে গিয়ে দেখুন সেগুলো থেকে আপনার ডিভাইসে থাকা কোন কোন অ্যাপ তথ্য নিচ্ছে। সন্দেহজনক কিছু পেলে সেগুলো চিহ্নিত করুন।

করণীয় কী? 
ভুক্তভোগী ও পরে সাইবার নিরাপত্তা বিশ্লেষক হওয়া শার্লট এ ধরনের সংকটে করণীয় সম্পর্কে কিছু পরামর্শ দেন—
১. প্রথম করণীয় হিসেবে সংশ্লিষ্ট অ্যাপ বা সফটওয়্যারটি ডিলিট করতে হবে।
২. ডিলিটের ক্ষেত্রে তথ্য হারিয়ে ফেলা থেকে শুরু করে নানা ধরনের সতর্কবার্তা দেওয়া হতে পারে। এগুলোতে ঘাবড়ালে চলবে না।
৩. যদি কোনোভাবেই ডিলিট করা না যায়, তবে ডিভাইসটি ফ্যাক্টরি সেটআপ দিতে হবে।
৪. সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে নিজের অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড পাল্টাতে হবে। একই সঙ্গে টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন চালু করতে হবে।
৫. ঘুরেফিরে একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৬. অনলাইনে নিজের বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে গিয়ে দেখুন সেগুলো থেকে আপনার ডিভাইসে থাকা কোন কোন অ্যাপ তথ্য নিচ্ছে। সন্দেহজনক কিছু পেলে সেগুলো বিযুক্ত করুন।
৭. সফটওয়্যার আপডেট করুন। অ্যাপল ও গুগল কিছুদিন পরপরই আপডেট অফার করে। এর মাধ্যমেও এ ধরনের সফটওয়্যারের হাত থেকে মুক্তি মিলতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়েছে নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে।

আইনি ব্যবস্থা
এ তো গেল ব্যক্তিগত পর্যায়ে করণীয়। আইনানুগ পথে কী পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে?

অধিকাংশ দেশেই এখন বিনা সম্মতিতে এ ধরনের নজরদারি রোধে আইন রয়েছে। উদাহরণ হিসেবে বিবিসির প্রতিবেদনে ফ্রান্সের কথা বলা হয়েছে। ২০২০ সালে দেশটি পারিবারিক নির্যাতন বন্ধে কঠোর আইন করেছে, যেখানে অন্য অনেক কিছুর সঙ্গে গোপন নজরদারির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। কারও সম্মতি ছাড়া তাঁর অবস্থান জানতে নজর রাখলে তাঁকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়েছে সেই আইনে। এ ধরনের অভিযোগ প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির এক বছরের জেল ও ৫১ হাজার ডলার জরিমানা হতে পারে। আর এমন কাজ কারও জীবনসঙ্গী করলে এই জরিমানার পরিমাণ আরও বেশি হতে পারে।

আইনও কি পারবে সমাধান দিতে?
ইভা গালপেরিন অন্তত এ ধরনের বিষয় পুরোপুরি আইনের হাতে ছেড়ে দিতে রাজি নন। তাঁর দৃষ্টিতে এ ধরনের সংকটের সমাধান শুধু আইন করতে পারবে না। এ ক্ষেত্রে তিনি গুগল ও অ্যাপলের মতো প্রযুক্তি-মোঘলদের সহায়তা চান। তাঁর ভাষ্যমতে, এ দুই প্রতিষ্ঠান চাইলে এ ধরনের অ্যাপের বিক্রি কার্যত অসম্ভব করে তুলতে পারে। একই সঙ্গে এ ধরনের অভিযোগকে আরও গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশকে যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়ার ওপরও জোর দেন তিনি।

অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে গেলে তারা একে উড়িয়ে দেয়। অনেক ক্ষেত্রে এমনকি হাস্যরসও করা হয় বিষয়টি নিয়ে। কিন্তু ভুক্তভোগীর কাছে এটি ভীষণভাবে পীড়াদায়ক। খোদ যুক্তরাষ্ট্রেই এ ধরনের ভুক্তভোগীদের সহায়তা দিতে আলাদা সংস্থা গড়ে উঠেছে। যুক্তরাষ্ট্রের করনেল ইউনিভার্সিটির সহযোগিতায় গড়ে ওঠা এমন এক প্রতিষ্ঠানের নাম ক্লিনিক টু অ্যান্ড টেক অ্যাবিউজ (সিইটিএ)।

সিইটিএ সরাসরি ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কাজ করে। একই সঙ্গে প্রযুক্তির অপব্যবহার সম্পর্কিত বিভিন্ন গবেষণাকে একীভূত করে কাজ করে। এমন সংকট থেকে মুক্তি পেতে ভুক্তভোগীদের নানা ধরনের পরামর্শ দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

সিইটিএর সঙ্গে কাজ করেন রোসানা বেলিনি। বিবিসিকে তিনি বলেন, ‘শনাক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা ফোন থেকে সরিয়ে ফেলার পরামর্শ আমরা দিই না। তার আগে কিছু নিরাপত্তা পরিকল্পনা করে নেওয়া হয়। পূর্ব অভিজ্ঞতার কারণেই এমনটা করা হয়। দেখা গেছে, হুট করেই এ ধরনের কোনো সফটওয়্যার অপসারণ করা হলে নিপীড়ক সহিংস হয়ে ওঠে। তারা তখন নিপীড়নের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তাই এ ক্ষেত্রেও কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।’

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here