বিএনপির সমাবেশের আগে পরিবহন ধর্মঘট, যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0
67
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। পুরোনো ছবি

(দিনাজপুর২৪.কম) দেশের সব বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশ করছে বিএনপি। ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও খুলনায় এ সমাবেশ করেছে তারা। এর মধ্যে চট্টগ্রাম ছাড়া বাকি দুই বিভাগেই ধর্মঘট ডেকেছিল পরিবহন মালিকরা। আগামী শনিবার রংপুরে ও ৫ নভেম্বর বরিশালে বিএনপির গণসমাবেশের আগেও ওই দুই জেলায় পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়েছে। এসব ধর্মঘট ডাকা পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের নিজেদের সিদ্ধান্ত বলে দাবি করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফকালে এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সড়ক পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা জোরদার ও দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সুপারিশ প্রণয়নে গঠিত কমিটির ১১১ দফা সুপারিশমালা বাস্তবায়নের জন্য টাস্কফোর্সের ষষ্ঠ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপির সমাবেশ কেন্দ্র করে পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হচ্ছে- সাংবাদিকরা এমন বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘অতীতে বাসমালিক-শ্রমিকরা দেখেছেন অগ্নিসংযোগ কাকে বলে। বাস বের হলেই আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। বিএনপি-জামায়াত সেই যে আন্দোলন শুরু করেছে, সেটা শেষ করেনি। তারা বলেনি ওই আন্দোলন শেষ হয়ে গেছে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এখন যদি মালিক-শ্রমিকেরা মনে করেন, তাদের বাস, ট্রাক তথা যানবাহনটি নিরাপদ নয়, তাহলে তারা রাস্তায় নামাতে না-ও পারেন। এ জন্য তো আমরা তাঁদের ফোর্স করছি না। এ ব্যাপারে তারা স্বাধীন।’

আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘তারা (মালিক-শ্রমিক) যদি সিদ্ধান্ত নিয়ে মনে করেন বাসটি গেলে আবার কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, আগের মতো যেমন বাস পুড়িয়ে দিয়েছে। সে অভিজ্ঞতা তো রয়েছে। সে অভিজ্ঞতা থেকে তারা যদি সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে আমাদের কিছু বলার নেই।’

বিএনপির সভা-সমাবেশে সরকার বাধা দিচ্ছে- এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের সভা-সমাবেশ করা নিয়ে আমরা কোনো বাধা দিচ্ছি না। যেখানে করতে চাচ্ছে, সেখানেই করছে। এখন বাস আসবে কি আসবে না, সেটা নিয়ন্ত্রণ করে বাস মালিক সমিতি এবং শ্রমিক সমিতি। তারা কী করবে না করবে এটা তাদের ব্যাপার।’ -ডেস্ক রিপোর্ট

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here