বিশ্বজুড়ে করোনার সুনামি, যে হুঁশিয়ারি দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

0
70

(দিনাজপুর২৪.কম) বিশ্ব জুড়ে ফের আছড়ে পড়েছে কোভিড-১৯ তরঙ্গ। সেই তরঙ্গে অন্যতম আলোচিত নাম করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন। এখনও পর্যন্ত যে তথ্য পাওয়া গেছে তাতে দেখা যাচ্ছে ওমিক্রনে সংক্রমণের হার বেশি থাকলেও ভয়াবহতা নেই। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে ডেল্টায় আক্রান্তের মতো ওমিক্রন আক্রান্ত রোগীকে হাসপাতালে যেতে হচ্ছে না। তাই বলে একে হালকা ভাবে নিলে চলবে না। তা হলে পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। এক সতর্কবার্তায় এমনটাই জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভিড-১৯ টেকনিক্যাল লিড মারিয়া ভ্যান কেরখোভ এক ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘কোনও কিছু অতি সরলীকরণ বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। ডেল্টার তুলনায় ওমিক্রন আক্রান্ত রোগীর হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকি কম। তার মানে এটি কম বিপজ্জনক এমনটা ভাবা ভুল হবে।’ তাঁর এই ভিডিও বার্তাটি তিনি টুইটও করছেন।

এর আগেও একাধিক বার ওমিক্রন নিয়ে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। করোনার ছড়িয়ে পড়া রুখতে বড় জমায়েত বন্ধের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ওদিকে করোনায় বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেড়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭ হাজারের বেশি মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২৫ লাখে।

গতকাল বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে পোল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ফ্রান্স ও ইউক্রেন। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৯ কোটি ৮০ লাখের ঘর। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫৪ লাখ ৮১ হাজার।

বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭ হাজার ১০৯ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৮০০। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৫৪ লাখ ৮১ হাজার ৫৮৭ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ লাখ ৭৭ হাজার ২৫৩ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে সাড়ে ৩ লক্ষাধিক। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৯ কোটি ৮০ লাখ ৬৭ হাজার ২২৭ জনে।

বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ৫১ হাজার ২৩৪ জন এবং মারা গেছেন ১ হাজার ৭৫৯ জন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৫ কোটি ৮৭ লাখ ৫১ হাজার ৭৫৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৮ লাখ ৫৩ হাজার ৫৪৯ জন মারা গেছেন।

অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮২৮ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৫ হাজার ৭৭২ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৫ লাখ ৮৫ হাজার ৯৮৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ১৩ হাজার ১৫ জনের।

এছাড়া গত এক দিনে যুক্তরাজ্যে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৪ হাজার ৭৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৪৩ জন। মহামারির শুরু থেকে এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৩৮ লাখ ৩৫ হাজার ৩৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৮৪ জন মারা গেছেন। একই সময়ে ইতালিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮৯ হাজার ১০৯ জন এবং মারা গেছেন ১৮৩ জন।

ফ্রান্সেও করোনা সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়েছে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৩২ হাজার ২৫২ জন এবং মারা গেছেন ২৪৬ জন। মহামারির শুরু থেকে এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ৯ লাখ ২১ হাজার ৭৫৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ২৪ হাজার ৮০৯ জন মারা গেছেন। একই সময়ে স্পেনে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৮০ জন এবং মারা গেছেন ১৪৮ জন।

এছাড়া জার্মানিতে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ১৯১ জন এবং মারা গেছেন ৪৩১ জন। করোনা মহামারির শুরু থেকে ইউরোপের এই দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৭৩ লাখ ৪২ হাজার ২১৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১ লাখ ১৩ হাজার ৯০২ জন মারা গেছেন। একই সময়ের মধ্যে ইউক্রেনে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৫৭১ জন এবং মারা গেছেন ২৭৩ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৩৩ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২৭ হাজার ২৬৭ জন। অপরদিকে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ২৩ লাখ ৫১ হাজার ১০৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ১৯ হাজার ৫৫৯ জনের।

এদিকে করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ৩ কোটি ৫১ লাখ ৫ হাজার ৫৮০ জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৮২ হাজার ৬১১ জন।

এছাড়া করোনায় আক্রান্ত হয়ে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় তুরস্কে ১৪৩ জন, পোল্যান্ডে ৬৩২ জন, দক্ষিণ আফ্রিকায় ১১০ জন, হাঙ্গেরিতে ৮২ জন এবং ভিয়েতনামে ২৩০ জন মারা গেছেন। অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় মেক্সিকোতে মারা গেছেন ১৩০ জন। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত উত্তর আমেরিকার এই দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৯৯ হাজার ৭১১ জনের।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে। -অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here