‘রুমিনকে অবরুদ্ধ করিনি, হোটেল উজান-ভাটিতে আপ্যায়নের ব্যবস্থা করেছি’

0
128
ছবি: ফোকাস বাংলা

(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সমাবেশে যোগ দিতে যাওয়ার পথে বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে দুইবার অবরুদ্ধ করে রাখা হয় বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

ঢাকা থেকে সমাবেশে যাওয়ার পথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শনিবার দুপুর ১২টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটে।

দুপুর ২টার দিকে টেলিফোনে রুমিন ফারহানা বলেন, ‘সভা প্রথমে হওয়ার কথা ছিল ফুলবাড়ীয়াতে। সেটা বদলে এখন পৌরসভার বাইরে বটতলীতে হবে। পুলিশ ১৪৪ ধারা জারি করার পর আমাদের নতুন জায়গায় সমাবেশ করার জন্য নতুন করে অনুমতি নিতে হয়েছে।’

পথে আটকে রাখার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আশুগঞ্জ ভৈরব ব্রিজের মুখে প্রায় আড়াইশ’ পুলিশ আমাকে প্রায় ১ ঘণ্টা রাস্তায় আটকে রাখে। তারা আমাকে ব্রিজে উঠতে দেবে না। সেখানে তাদের সঙ্গে আমার বাগ্‌বিতণ্ডা, কথা-কাটাকাটি হয়েছে।’

‘তাদেরকে বলেছি, আমাকে যেতে না দিলে আমি রাস্তায় বসে পড়বো। তারা বলেন, আপনি রাস্তা বন্ধ করতে পারবেন না। তখন আমি বলি, আপনি তাহলে আইন যা বলে তা করেন’ যোগ করেন বিএনপির এই নেত্রী।

সেখানে ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) উপস্থিত ছিলেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘ম্যাজিস্ট্রেট আমাকে আইনের কথা বলেছে। তাকে আমি বলেছি, পুরো পেনাল কোড আমার মুখস্থ। আমাকে আইন দেখিয়ে তো লাভ নেই।’

‘একপর্যায়ে তারা আমাকে বলেন, ঠিক আছে আপনি প্রেসের সঙ্গে মিট করলে উজান-ভাটি রেস্টুরেন্ট পর্যন্ত যেতে পারবেন। এর পরে আর যেতে পারবেন না’ যোগ করেন রুমিন ফারহানা।

তিনি বলেন, ‘তারপর উজান-ভাটিতে গিয়ে বসি। নারী পুলিশসহ প্রায় দুই থেকে আড়াইশ’ পুলিশ আমাকে ঘিরে রাখে। আমীর খসরু মাহমুদ চাচা (বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য) সেখানে আসেন। তার সঙ্গে সেখানেই কিছু সময় বসেছি। এরপর আমরা রওনা দিই।’

যাত্রাপথের অবস্থা জানতে চাইলে এই সংসদ সদস্য বলেন, ‘এখনো পুলিশ আমাদের কর্ডন করে নিয়ে যাচ্ছে। আমাদের পেছনে কয়টা গাড়ি আছে জানি না। তবে সামনে ৩টা পুলিশের গাড়ি দেখতে পাচ্ছি।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোল্লা মোহাম্মদ শাহীন বলেন, ‘আমরা ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে অবরুদ্ধ করিনি। আমরা তার সঙ্গে কথা বলেছি। তার জন্য হোটেল উজান-ভাটিতে আপ্যায়নের ব্যবস্থা করেছি।’ ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৪৪ ধারা জারি থাকায় সেখানে যেতে নিরুৎসাহিত করেছি মাত্র’ যোগ করেন তিনি। -অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here