সাইবার অপরাধ ঠেকাতে একযোগে কাজ করবে সদস্য রাষ্ট্রগুলো

0
84

(দিনাজপুর২৪.কম) আন্তঃদেশীয় সাইবার অপরাধের উত্থান ঠেকাতে ইন্টারপোলের সদস্য রাষ্ট্রসমূহ একযোগে কাজ করার প্রত্যয়  ঘোষণা করেছে। সিদ্ধান্ত নিয়েছে, মাদক কারবারিরা যে সব নতুন মাদক তৈরি করছে ও বিভিন্ন দেশের সীমান্তের যে সব রুট ব্যবহার করছে সেগুলোকে চিহ্নিত করা এবং মাদক ব্যবসায়ীদের ডাটা-বিনিময় করার। যে রাষ্ট্রগুলোতে দুর্বৃত্তদের আনাগোনা রয়েছে সেই দেশগুলোর সঙ্গে নিজ নিজ দেশের বন্দিবিনিময় চুক্তির ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।
এতে প্রায় ৪০টি রাষ্ট্র একমত পোষণ করেছে। ইন্টারপোলের সদস্য দেশগুলো অনলাইনে শিশুর পর্নোগ্রাফি ঠেকাতে একযোগে কাজ করবে। সদস্য দেশ সমূহ মিলে অপরাধ দমনে একটি  ‘তথ্য ব্যাংক’ তৈরি এবং একে এগিয়ে নেয়ার জন্য বড় তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে। এছাড়াও সম্মেলনে আন্তর্জাতিক ও আন্তঃরাষ্ট্রীয় অপরাধ  দমন, মানিলন্ডারিং, নারী ও শিশু নির্যাতন এবং বহুমুখী অপরাধের ডাটা ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত বিভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেছে। গত ২৩শে নভেম্বর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ইন্টারপোলের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে ১৯৫টি রাষ্ট্রের পুলিশ প্রধানগণ যোগ দেন। বাংলাদেশের পুলিশের আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল সম্মেলনে অংশ নেন।
সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (অপারেশন এবং মিডিয়া ও প্ল্যানিং) মো. হায়দার আলী খান মানবজমিনকে জানান, ‘এবারের সম্মেলনের মূল ফোকাস ছিল সাইবার অপরাধের উত্থান ঠেকানো এবং সংস্থার নতুন কমিটি গঠন।
সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, করোনার কারণে গত বছরের সম্মেলন মূলতবি হয়েছিল। এবারের সম্মেলনে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। ১৯৫টি সদস্য দেশ সস্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একযোগে কাজ করতে একে-অপরকে অপ্রতিরোধ্য সমর্থন দিয়ে যাবেন বলে ঘোষণা করেছে। সূত্র জানায়, সদস্য রাষ্ট্রগুলো ইন্টারপোলের গভর্নিং বডিগুলোকে আধুনিকীকরণের যে বহুমুখী উদ্যোগ নিয়েছে তাতে সবাই একযোগে সমর্থন দিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে অধিকতর স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন প্রক্রিয়ার পরিবর্তন। বৈশ্বিক নিরাপত্তার জন্য সংঘটিত অপরাধ  থেকে সারা দুনিয়ার নাগরিক সমাজকে কীভাবে নিরাপত্তা দেয়া যায় তার জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে নানামুখী কৌশল। একটি নিরাপদ পৃথিবী তৈরি করার জন্য তারা একযোগে কাজ করবে বলে সদস্য রাষ্ট্রসমূহ একমত হয়েছে।
সূত্র জানায়, এবারের সম্মেলনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের প্রযুক্তিগত দিকটি শক্তিশালীকরণ, শিশুদের যৌন নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা, তথ্য নিরাপত্তা, আর্থিক অপরাধ ঠেকানো ও প্রশিক্ষণ ক্ষমতা বৃদ্ধিকরণের বিষয়ে জোর দেয়া হয়েছে। যেসব সদস্য রাষ্ট্রের প্রযুক্তিগত দিক থেকে দুর্বল বা অদক্ষ জনবল রয়েছে তাদের ইন্টারপোলের সদস্যভুক্ত উন্নত রাষ্ট্রগুলো সহযোগিতা করবে বলে প্রস্তাবনা পাস হয়েছে।
সূত্র জানায়, যে সব রাষ্ট্রে মাদকের ব্যবহার বাড়ছে সেইসব রাষ্ট্রেকে লাল মার্ক করে সেখান থেকে মাদক চোরাচালান ঠেকাতে সবাই একত্রে কাজ করার উদ্যোগ নিয়েছে। বিশেষ করে নতুন মাদক যে সব দেশে তৈরি হচ্ছে সেই সব দেশে থেকে আসা রপ্তানি পণ্যগুলো বেশি করে তল্লাশি করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। সূত্র জানায়, সাম্প্রতিক সময়ে মুদ্রা চোরাচালান বেড়ে গেছে। চোরাকারবারিরা বিভিন্ন দেশকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করছে। এতে আন্তঃদেশীয় একটি অপরাধী চক্র গড়ে উঠেছে। এই চক্রকে ঠেকাতে সদস্য রাষ্টগুলো তথ্য আদান-প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সূত্র জানায়, যে সব দেশে দুর্বৃত্তরা বিভিন্ন অপরাধ করে পালিয়ে আছে তাদের ঠিকানা নতুনভাবে আপডেট করা এবং যখন ওই সব দুর্বৃত্তদের রাষ্ট্রের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানতে চাইবে তাদের অবস্থান তখন যাতে দ্রুত তথ্য দেয়া যায় ওই বিষয়টির ওপরও একমত পোষণ করেছে সদস্য রাষ্ট্রগুলো। সূত্র জানায়, তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সম্মেলনে এবারের ইন্টারপোলের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের নাসের আল রাইসি। এছাড়াও আলাদাভাবে ১১ জন নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত  হওয়ার মধ্য দিয়ে সম্মেলনের সমাপ্তি ঘটেছে।-ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here