৫ নভেম্বর বরিশাল হবে জনগণের শহর : কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে সরব বরিশাল অঞ্চল বিএনপি

0
46

(দিনাজপুর২৪.কম) আগামী ৫ নভেম্বর বরিশালে মহাসমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। সমাবেশকে ঘিরে তাদের মধ্যে চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে। এরই মধ্যে নগরের সদর রোডে বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপির দলীয় কার্যালয় ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। সমাবেশস্থল বঙ্গবন্ধু উদ্যানের আশপাশের সড়কগুলোতেও প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার টাঙানো হয়েছে।

যদিও সমাবেশের প্রচার-প্রচারণা চালাতে গিয়ে বরিশাল নগর, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জ ও উজিরপুর উপজেলায় হামলার শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতারা। তারপরও প্রচার অভিযান থেমে নেই বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের। প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা ধরে লিফলেট বিতরণ এবং খণ্ড খণ্ড সভাও করছেন তারা।
বুধবার বরিশাল প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান। অন্য দিকে বঙ্গবন্ধ উদ্যানে মঞ্চ তৈরিসহ মাঠ গোছানোর কাজ এগিয়ে নিচ্ছেন কর্মীরা।

তবে পরিবহন ধর্মঘটের কারণে বিভাগের অন্য জেলা থেকে নেতাকর্মীদের আগমন নিয়ে কিছুটা শঙ্কাও রয়েছে। যদিও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলছেন, প্রয়োজনে হেঁটে নেতাকর্মীরা সমাবেশে আসতে প্রস্তুত রয়েছেন।

মহাসমাবেশের প্রস্তুতি নিয়ে বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, রংপুর, খুলনা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রামের অভিজ্ঞতায় আমরা দেখেছি, প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করার জন্য সরকারি দল এবং প্রশাসন যৌথভাবে নানান ধরনের অপতৎপরতায় লিপ্ত ছিল। তবে সেসব অপতৎপরতা মোকাবেলা করেই একেকটি বিভাগীয় মহাসমাবেশ জনসমুদ্রে রূপান্তরিত হয়েছে। বরিশালের এই মহাসমাবেশের প্রস্তুতি নিতে গিয়ে ইতোমধ্যে আমরা বেশ কিছু তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয়েছি। পরিবহন মালিক সমিতির নাম ব্যবহার করে কৌশলে ৪ ও ৫ নভেম্বর একটা ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এটা নিয়ে সরকারি দলের সাধারণ সম্পাদক আকার-ইঙ্গিতে বলেছেন, যাতে আমরা বুঝতে পেরেছি মহাসমাবেশের জনসমাগম ঠেকানোর জন্য এই কৌশল ব্যবহার করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বরিশাল, উজিরপুর, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর আক্রমণ করা হয়েছে। গৌরনদী-আগৈলঝাড়ার অবস্থাও অত্যন্ত ভয়াবহ।

বরিশালের বিভাগীয় গণসমাবেশ বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, অন্য জায়গার মতো বরিশালেও সব বাধাবিপত্তি উপেক্ষা করে বেলস পার্কে সমাবেশ সফলভাবে অনুষ্ঠিত হবে। আজ দেশের অর্থনীতি বিপর্যস্ত, নেই আইনের শাসন, নেই মানবাধিকার। জনগণ ভোট দিতে পারে না, ভোটাধিকার ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ে আজ এ জন্যই সমাবেশের নাম দেয়া হয়েছে গণসমাবেশ। এটা বিএনপির জনসভা না, এটা বিএনপি এবং সব শ্রেণিপেশার মানুষের উপস্থিতিতে গণসমাবেশ, যা মহাসমুদ্রে রূপান্তরিত হবে। যেখানে অংশ নিতে মানুষ বিভাগের বিভিন্ন জায়গা থেকে বরিশাল শহরে অবস্থান নেয়া শুরু করেছে। সবার সহযোগিতায় মহাসমাবেশ সফল হবে এবং ৫ নভেম্বর বরিশাল হবে জনগণের শহর।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট বিলকিস জাহান শিরিন, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান ও মাহবুবুল হক নান্নু, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবায়েদুল হক চান, কেন্দ্রীয় বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক এমপি মেজবা উদ্দিন ফরহাদ, সাবেক এমপি আবুল হোসেন খান, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান খান ফারুক, যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আলী হায়দার বাবুল, সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট মীর জাহিদুল কবির, বিএনপির কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক কাজী রওনাকুল ইসলাম টিপু, যুবদলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি নুরুল ইসলাম নয়ন, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল কালাম শাহিন, বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলহাজ নুরুল আমিন প্রমুখ।

এর আগে নগরীর বিভিন্ন স্থানে লিফলেট বিতরণ ও গণসংযোগ করেন- বরিশাল বিভাগীয় গণসমাবেশ বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মো: মজিবর রহমান সরোয়ারসহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

জনগণের আদালতে সরকারের প্রতিটি কু-কর্মের বিচার হবে : বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও বরিশাল বিভাগীয় গণসমাবেশ বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেছেন, আমাদের এই আন্দোলন দেশের মানুষের মুক্তির আন্দোলন। দেশব্যাপী নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধি ও মানুষ হত্যার প্রতিবাদের আন্দোলন। তিনি বলেন, এ সরকারের সব কুকর্মের বিচার জনগণের আদালতে করা হবে।

বুধবার দুপুরে বরিশাল সদর রোডস্থ জেলা ও মহানগর বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিএনপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও ডা: যোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে একটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করার প্রতিবাদে বরিশাল মহানগর, দক্ষিণ ও বরিশাল উত্তর জেলা যুবদলের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বরিশাল মহানগর যুবদল সভাপতি অ্যাডভোকেট আকতারুজ্জামান শামীমের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট বিলকিস জাহান শিরিন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান ও মাহবুবুল হক নান্নু, কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক কাজী রওনাকুল ইসলাম টিপু, কেন্দ্রীয় যুবদল সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম নয়ন, বরিশাল মহানগর বিএনপি আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান খান ফারুক, সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট মীর জাহিদুল কবির জাহিদ, জেলা যুবদল সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এইচ এম তছলিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাফিজ আহমেদ বাবলু, জেলা যুগ্মসম্পাদক মাওলা রাব্বি শামীম, মহানগর যুবদল সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান পলাশ, বরিশাল উত্তর জেলা যুবদল সদস্যসচিব গোলাম মোর্শেদ মাসুদ।

পিরোজপুরের বিভিন্ন স্থানে হুমকি-ধমকি

পিরোজপুর প্রতিনিধি জানান, বরিশালে বিভাগীয় গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিভিন্ন হুমকি-ধমকি, লাঞ্ছনা ও বাধা প্রদানের প্রতিবাদে এবং প্রশাসনের নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনের দাবি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পিরোজপুর জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ। বুধবার বেলা ১১টায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যক্ষ আলমগীর হোসেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সদস্যসচিব গাজী ওয়াহিদুজ্জামান লাভলু, যুগ্ম আহ্বায়ক শেখ রিয়াজ উদ্দিন রানা, সদস্য অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আকন, সদস্য শেখ শহিদুল্লাহ শহিদ প্রমুখ।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যক্ষ আলমগীর হোসেন জানান, গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে পিরোজপুরের সব উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে লিফলেট বিতরণ ও প্রচার চালানোর সময় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ বাধা দিচ্ছে। এ ছাড়াও ইউনিয়ন পর্যায়ের বিএনপির যুবদল-ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের বরিশালে না যাওয়ার জন্য হুমকি-ধমকিসহ পুলিশের মাধ্যমে হয়রানি করা হচ্ছে। বেশ কয়েকটি স্থানে নেতাকর্মীদের লাঞ্ছিত করা ও হামলার ঘটনাও ঘটেছে। তিনি বলেন, আমরা সব বাধা বিপত্তিকে অতিক্রম করে পিরোজপুর জেলা থেকে ১৫ হাজারের বেশি লোক নিয়ে বিভাগীয় সমাবেশে উপস্থিত হতে চাই। এ সময় পথে নেতাকর্মীদের বাধা দিয়ে বিশৃঙ্খলা না করার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করা হয়। পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের নিরপেক্ষ ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনে অনুরোধ জানান জেলা বিএনপির আহ্বায়ক।

জেলা বিএনপির সদস্যসচিব গাজী ওয়াহিদুজ্জামান লাভলু বলেন, বিভিন্ন জায়গায় আমাদের নেতাকর্মীদের ওপরে একাধিকবার হামলার ঘটনা ঘটেছে; বাধা দেয়া হচ্ছে প্রচারণায়। তবে সব বাধা উপেক্ষা করে আগামী ৫ নভেম্বর বরিশাল বিভাগীয় গণসমাবেশকে সফল করতে আমরা বরিশালে যাবো। এ সময় নেতারা জানান, আমাদের মঠবাড়িয়া ও নেছারাবাদের নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে অনেকে বরিশালে পৌঁছে গেছে; বাকিরা নির্দিষ্ট সময়ে গণসমাবেশে যোগদান করবে। -নিউজ ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here