• Top News

    বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রির ১০ লাখ টাকা নিয়ে ম্যানেজার পলাতক

      প্রতিনিধি ২৮ এপ্রিল ২০২৩ , ৮:০০:৫৪ প্রিন্ট সংস্করণ

    কাউন্টার বন্ধ পেয়ে অপেক্ষায় থাকেন যাত্রীরা। ছবি: সংগ্রহীত

    (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শ্যামলী এন.আর ট্রাভেলসের একটি বাসের অগ্রিম টিকেট বিক্রির প্রায় ১০ লাখ টাকা নিয়ে কাউন্টার বন্ধ করে এর ম্যানেজার পালিয়ে গেছেন। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন ফুলবাড়ী থেকে ঢাকাগামী যাত্রীরা। বাসটিতে ১২০ জন যাত্রীর ঢাকা যাওয়ার কথা ছিল বলে জানা গেছে।

    জানা যায়, ফুলবাড়ী থেকে ঢাকাগামী শ্যমলী এন.আর ট্রাভেলসের কাউন্টার ম্যানেজার সোহেল গত ২৭ এপ্রিল থেকে ৪-৫ মে পর্যন্ত অগ্রিম টিকিট বিক্রি করেন। পরে অগ্রিম টিকিট বিক্রির প্রায় ১০ লাখ টাকা নিয়ে কাউন্টার বন্ধ করে পালিয়ে যান। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় যাত্রীরা বিষয়টি আঁচ করতে পারেন।

    গত রাতে কাউন্টারে এসে বন্ধ পান ঢাকাগামী যাত্রীরা। তারা কোম্পানির প্রতিনিধি কাউন্টার ম্যানেজারের ফোনে কল করলে তা বন্ধ পান। এভাবে রাত ১২টা পর্যন্ত ক্ষুব্ধ যাত্রীরা কাউন্টারের সামনে অবস্থান নেন। এসময় যাত্রীরা ক্ষুব্ধ হয়ে কাউন্টারে ভাংচুর চালান এবং কাউন্টারের মালামাল নিয়ে যান।

    বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় কাউন্টারের সামনে কথা হয় উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের হাফিজুর রহমানের মেয়ে হাবিবা ও তার স্বামী পলাশের সঙ্গে। তারা ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করেন। এ দম্পতি বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা যেতে বেশি দামে ৩ হাজার টাকায় দুটি টিকেট কেটেছেন। এখন কাউন্টার বন্ধ ম্যানেজারের মোবাইল নম্বর বন্ধ। শনিবার তাদের কাজে যোগ দিতে হবে। একদিকে টাকা লোকসান, অন্যদিকে সঠিক সময়ে কাজে যোগ দেওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন বলে জানান তারা।

    ফুলবাড়ী মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার আলী দুলাল বলেন, শ্যামলী এন.আর ট্রাভেলসের কাউন্টার ম্যানেজার পালিয়েছে। এটা একটি পরিবহন জগতে বিরল ঘটনা। ম্যানেজার যাত্রীদের অগ্রিম টাকা নিয়ে পালিয়েছে, এটা মেনে নেয়া যায় না। তার জন্য আমাদেরও বদনাম হচ্ছে।’

    ম্যানেজার কত টাকা নিয়ে পালিয়ে যেতে পারেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি শুনেছি বৃহস্পতিবার রাতে তার কাউন্টারে থেকে ১২০ জন যাত্রী যাওয়ার কথা। সেই হিসেবে ধারণা করা হচ্ছে ২৭ এপ্রিল থেকে ৫ মে পর্যন্ত অগ্রিম টিকেট বিক্রির ৮ থেকে ১০ লাখা টাকা নিয়ে সে গা ঢাকা দিয়েছে।’

    তিনি আরও বলেন, কাউন্টার ম্যানেজার তো শুধু শ্যামলী এন.আর ট্রাভেলসের অগ্রিম টিকেট বিক্রি করেনি। সে আরও ছয়টি বাস রিজার্ভ করেছে ঢাকা যাতায়াতের জন্য এবং রিজার্ভ বাসেরও টিকেট বিক্রি করেছে।’

    এ ব্যাপারে শ্যামলী এন.আর ট্রাভেলসের ফুলবাড়ী কাউন্টার ম্যানেজার সোহেলের মোবাইল ফোন নম্বরে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

    বিষয়টি নিয়ে শ্যামলী এন.আর ট্রাভেলসের দিনাজপুর জেলা কাউন্টারের ম্যানেজার রুবেলের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আমাদের কোম্পানির অনলাইন টিকিটের যাত্রীদের আমারা ফুলবাড়ী থেকে নিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু ফুলবাড়ী কাউন্টার ম্যানেজারের রিজার্ভ গাড়ির যাত্রীর দায়িত্ব আমরা নেব না।’

    ফুলবাড়ী কাউন্টারের বিষয়ে এখন কি হবে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কোম্পানির জিএম, মালিকপক্ষ দেশের বাহিরে আছেন; তারা এলেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’ -ডেস্ক রিপোর্ট

    মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।