মারা গেলেন উত্তর কোরিয়ার ‘মতাদর্শগত গডফাদার’ হিসেবে খ্যাত কিম ইয়ং জু

0
82

(দিনাজপুর২৪.কম) উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি কিম ইল সাং এর ছোট ভাই কিম ইয়ং জু মারা গেছেন। মৃত্যকালে তার বয়স হয়েছিলো ১০১ বছর। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কিম ইয়ং জু এর মৃত্যুর বিষয় বুধবার নিশ্চিত করেছেন।

দলের নিয়ম ও নীতি বাস্তবায়নের জন্য একনিষ্ঠভাবে সংগ্রাম করেছিলেন কিম ইয়ং জু এবং সেই সাথে সমাজতান্ত্রিক বিভিন্ন বিষয় ত্বরান্বিত করতে অবদান রেখেছিলেন। এদিকে কিম ইয় জু এর মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়ে পুষ্পস্তবক পাঠিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন।

কিম ইয়ং জু ১৯৭০ এর শুরুর দিকে যখন উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন তখন তিনি দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে গোপন বৈঠক করেন যার ফলস্বরূপ ১৯৭১ সালের ৪ জুলাই উত্তর-দক্ষিণ যৌথ ইশতেহারে পরিণত হয় যা  প্রথম আন্ত-কোরিয়ান চুক্তি হিসেবে পরিচিত।

১৯৭০ এর শুরুর দিকে বড় ভাই কিম ইল সাংয়ের উত্তরাধিকার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন কিম ইয়ং জু। ১৯৭৪ সালে তিনি উপপ্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। কিন্তু কিম ইল সাং তার ছেলে কিম জং ইলকে আসনে বসাতে চাওয়ার কারণে সৃষ্টি হয় জটিলতার। এর জের ধরে কিম ইয়ং জুকে রাজনৈতিক অবসরে পাঠানো হয়। পরে ১৯৯০ এর শুরুর দিকে তাকে ক্ষমতাসীন ওয়ার্কাস পার্টির একটি বিশেষ অবস্থান দেওয়া হয়।

১৯৯৪ সালে কিম ইল সাংয়ের মৃত্যুর পর ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে তার ছেলে কিম জং ইল।  আর এসময় রাজনৈতক মারপ্যাচে পরে যান কিম ইয়ং জু।

১৯২০ সালে জন্মগ্রহণ করেন কিম ইয়ং জু। তিনি রাশিয়ার মস্কো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজনীতি,অর্থনীতি ও আইন বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং ১৯৫৩ সালে উত্তর কোরিয়া ফিরে আসেন।

কিম ইয়ং জুকে উত্তর কোরিয়ার মতাদর্শগত গডফাদার বলা হয়। তিনি মনোলিথিক আইডিওলজিকাল সিস্টেম প্রতিষ্ঠার জন্য দশটি নীতির সংস্করণের প্রস্তাব করেছিলেন যা কিম ইল সুং এর বৈধতাকে আরো শক্তিশালী করেছিল। অনলাইন ডেস্ক

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here