সোমবার , ৩ জুন ২০২৪ | ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. আইন আদালত
  3. আর্ন্তজাতিক
  4. এক্সক্লুসিভ
  5. কৃষি ও কৃষাণ
  6. ক্যাম্পাস
  7. ক্রিকেট
  8. গল্প-সাহিত্য
  9. চাকুরি
  10. জাতীয়
  11. জেলার খবর
  12. টালিউড
  13. টেনিস
  14. তথ্য-প্রযুক্তি
  15. ধর্ম ও ইসলাম

ব্যাংকের লকার থেকে সোনা গায়েব নিয়ে ধোঁয়াশা

প্রতিবেদক
admin
জুন ৩, ২০২৪ ৩:৪২ পূর্বাহ্ণ

(দিনাজপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম) চট্টগ্রামে ইসলামী ব্যাংক চকবাজার শাখার লকার থেকে এক গ্রাহকের প্রায় ১৫০ ভরি স্বর্ণালংকার গায়েবের ঘটনায় ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রাহক ও লকার ইনচার্জ একে অপরের দিকে অভিযোগের তীর ছুড়ছে।

ঘটনা জানাজানির পাঁচ দিন পরও গ্রাহক বা ব্যাংকের পক্ষ থেকে কোনো আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। অভ্যন্তরীণ তদন্তের কথা বলে গ্রাহকের কাছ থেকে সাত দিন সময়ও নেওয়া হয়। এভাবে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে আশ্বস্ত করে ঘটনাটি গোপন রাখার চেষ্টা করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

এ অবস্থায় স্বর্ণালংকার গায়েবের সুস্পষ্ট কোনো তথ্য এখনো না মেলায় এ ঘটনায় চট্টগ্রামজুড়ে চলছে নানা গুঞ্জন, তোলা হচ্ছে নানা প্রশ্ন। ব্যাংকের তথ্যমতে, লকার খোলার মূল চাবি থাকে একমাত্র গ্রাহকের কাছে। নকল চাবি থাকে লকার ইনচার্জের কাছে। তাহলে এই দুই পক্ষের মধ্যে গ্রাহক যদি লকার না খুলে তাহলে লকারটি খোলার সঙ্গে কে বা কারা জড়িত- এমন প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট কোনো জবাব মিলছে না।

অন্যদিকে ইসলামী ব্যাংক কর্তৃপক্ষ লকার থেকে স্বর্ণালংকার খোয়া যাওয়ার ঘটনায় গ্রাহকের বিরুদ্ধে স্ববিরোধী ও বিভ্রান্তিকর তথ্য দেওয়ার অভিযোগও তুলেছে। ফলে অলংকার চুরির অভিযোগ ও পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ নিয়েও নানা ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্বর্ণালংকার খোয়া যাওয়ার বিষয়ে গ্রাহক রোকেয়া আক্তার বারী ব্যাংকের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ নিয়ে ২৯ মে দুপুরে তিনি চকবাজার থানায় গিয়েছিলেন। সেখানে মৌখিক অভিযোগ করার পর ওসি ব্যাংকে যান এবং লকার খোলা থাকার বিষয়ে প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে তাকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন।

রাতে রোকেয়া আক্তারের ছেলে লিখিত অভিযোগ নিয়ে থানায় যান। তিনি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে চাইলে ওসি এ ধরনের ঘটনায় মামলা করতে হবে বলে জানান। তিনি সময় চাইলে ওসি পরদিন দুপুর ১২টার দিকে লিখিত এজাহার নিয়ে থানায় যেতে বলেন। এরপর তারা আর থানায় যাননি।

Bank2

এ বিষয়ে চকবাজার থানার ওসি মোহাম্মদ ওয়ালী উদ্দিন আকবর বলেন, গ্রাহকের অভিযোগ পেয়ে আমরা ব্যাংকে গিয়েছিলাম। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত এ বিষয়ে আমাদের লিখিত বা মৌখিকভাবেও কিছুই জানায়নি। এ বিষয়ে তারা আমাদের সঙ্গে কোনো কথাও বলেনি।

এ বিষয়ে রোকেয়া আক্তারের ছেলে ডা. রিয়াদ মোহাম্মদ মারজুক বলেন, ব্যাংকের সাথেই লাগোয়া চকবাজার থানা। বিষয়টি আমরা পুলিশকে জানিয়েছি। পুলিশ মামলা করতে বলেছেন। তবে আইনজীবীরা বলেছেন থানার চেয়ে আদালতে মামলা করলে ভালো হবে। তখন পিবিআই বা সিআইডিকে দিয়ে তদন্ত হবে। তাই আমরা আদালতে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

ব্যাংকের গ্রাহক রোকেয়া আক্তার বারী বলেন, আমাদের একজন আইনজীবী আছেন। উনার সঙ্গে পরামর্শ করেছি। উনি বলেছেন আদালতে মামলা করতে। মামলার প্রক্রিয়া চলছে। অবশ্যই মামলা হবে। আমি আমার গোল্ড ফেরত চাই। না হলে সমপরিমাণ টাকা আমাকে ফেরত দিতে হবে।

নগরীর চট্টেশ্বরী রোডের বাসিন্দা রোকেয়া আক্তার বারী বলেন, গত বুধবার (২৯ মে) দুপুরের দিকে আমি ব্যাংকে যাই। নিয়ম অনুযায়ী প্রথমে লকার ইনচার্জ লকার রুমে ঢোকেন। আমি ঢুকব এমন সময় উনি বের হয়ে বললেন, ম্যাডাম, আপনার লকারের নম্বর কত? আমি বললাম ৪৪। উনি বললেন, ম্যাডাম, আপনার লকার তো খোলা।

রোকেয়া বলেন, আমি তাড়াতাড়ি গিয়ে লকারে হাত ঢুকিয়ে দেখলাম, সামনের দিকে যেগুলো রাখা হয়েছিল, সেগুলোর কিছু নেই। পেছনের দিকে সাত-আটটা বক্স পেয়েছি। সেখানে দুইটা বক্সের মধ্যে ১০-১১ ভরি মতো গোল্ড পেয়েছি। পাঁচ-ছয়টা খালি। যেখানে ১৪৯ থেকে ১৫০ ভরির মতো স্বর্ণালংকার ছিল। আমার দুই ছেলের বউয়ের গোল্ডও সেখানে ছিল। সেগুলো এখন নেই।

রোকেয়া আক্তার বারীর ছেলে ডা. রিয়াদ মোহাম্মদ মারজুক বলেন, ২০০৭ সাল থেকে তার মা রোকেয়া আক্তার একমাত্র গ্রাহক হিসেবে লকারটি ব্যবহার করে আসছিলেন। সেখানে মা ও তার দুই পুত্রবধূর এবং মেয়ের প্রায় ১৬০ ভরি সোনার অলংকার রাখা হয়েছিল। এর মধ্যে ১০-১১ ভরি বাদে বাকি সব অলংকার উধাও হয়ে গেছে। বিষয়টি জানতে ২ জুন রোববার দুপুরে ব্যাংকে গিয়ে লকার ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্বরত কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলতে চাইলেও শাখা প্রধানের অনুমতি মেলেনি। এমনকি লকার ইনচার্জের নামও জানাতে রাজি হননি তিনি।

চকবাজার শাখা প্রধান ও ইসলামী ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম শফিকুল মওলা চৌধুরী জানান, ২০০২ সাল থেকে রোকেয়া আক্তার বারী এককভাবে লকারটি ভাড়া নিয়ে পরিচালনা করে আসছিলেন। উনি একাই সেটি পরিচালনা করতেন, মনোনীত কোনো প্রতিনিধি ছিল না।

এস এম শফিকুল মওলা চৌধুরী বলেন, রোকেয়া আক্তার গত ৮ এপ্রিল লকার ব্যবহারের জন্য ব্যাংকে এসেছিলেন। ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রাহকের উপস্থিতিতে মাস্টার কী (চাবি) দিয়ে লকার আনলক করেন। পরে গ্রাহক যথারীতি তার কাছে রক্ষিত চাবি ব্যবহার করে পরিপূর্ণভাবে লকার খুলে তার কাজ শেষে লকার বন্ধ করে লকার ইনচার্জকে অবহিত করে চলে যান।

এস এম শফিকুল মওলা চৌধুরী বলেন, আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। উনারা পরামর্শ দিয়েছেন, আগে তদন্ত কার্যক্রম শেষ হোক। তারপর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সত্যতা যাচাই না করে পুলিশের কাছে কোন যুক্তিতে যাব? গ্রাহকের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক। মৌখিকভাবে উনাদের কাছে আমরা সময় চেয়েছি। আমি কেবল রিলেশনের মাধ্যমে সমঝোতা করতে চেয়েছি। উনারা আমাদের সাত দিন সময় দিয়েছেন।

লকারের প্রযুক্তিগত বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে গ্রাহক ছাড়া কারও পক্ষে সেটি খোলা সম্ভব নয় উল্লেখ করে ব্যাংকের এই কর্মকর্তা বলেন, মৌখিক অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা পুঙ্খানুপুঙ্খ পরীক্ষা করে দেখেছি। লকার রুমে কোনো জানালা বা ভেন্টিলেটর নেই। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা রক্ষী সেখানে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করেন। লকার রুমে চুরির কোনো সুযোগ নেই।

Bank3

এদিকে রোববার (২ জুন) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৯ মে গ্রাহক তার লকার ব্যবহার করতে এসে তার গহনা খোয়া গেছে বলে জানান। অথচ এর আগে তিনি নিজে লকার বন্ধ করে চাবি নিয়ে গেছেন।

তারপর লকার হোল্ডার (গ্রাহক) একবার বলেন তার ৩০০ ভরি স্বর্ণ নেই, কিছুক্ষণ পর আবার জানান ১৫০ ভরি স্বর্ণ নেই এবং কিছুক্ষণ পর আবার জানান ১৫০ ভরির মধ্যে অর্ধেক পেয়েছেন, বাকি অর্ধেক পাননি। তিনি এ ধরনের স্ববিরোধী ও বিভ্রান্তকর তথ্য দিয়েছেন।

ইসলামী ব্যাংকের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রতিটি লকার খোলার জন্য দুটি চাবির প্রয়োজন হয়, যার একটি গ্রাহক ও অন্যটি ব্যাংকের কাছে থাকে। গ্রাহকের চাবি ছাড়া কেবল ব্যাংকে রক্ষিত চাবি দিয়ে কোনোভাবেই লকার খোলা সম্ভব নয়। ব্যাংকিং নিয়ম অনুযায়ী গ্রাহককে তার লকারের মূল চাবি বুঝিয়ে দেওয়া হয়। লকারে রক্ষিত মালামাল ও তার পরিমাণ সম্পর্কে একমাত্র গ্রাহক ছাড়া ব্যাংকার বা অন্য কোনো ব্যক্তির জানার সুযোগ নেই।

একমাত্র গ্রাহকের পক্ষে তার চাবি দিয়ে লকার বন্ধ করার সুযোগ আছে। লকার বন্ধ না করা পর্যন্ত গ্রাহকের চাবি বের করে আনা যায় না। লকার বন্ধ করার সময় নিয়ম অনুযায়ী ব্যাংকের কারও সেখানে থাকার সুযোগ নেই।

রোকেয়া আক্তার বারীও অবশ্য জানিয়েছেন, ৮ এপ্রিল তিনি লকারে সব সোনার অলংকার পেয়েছিলেন এবং তিনি যথারীতি লকার বন্ধ করেই ফিরে যান। ২০০৬ সাল থেকে তিনি ও তার মেয়ে নাসিয়া মারজুকা যৌথ নামে লকারটি ব্যবহার করে আসছিলেন। কোনো সময় অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা ঘটেনি। এ ঘটনায় তিনি যেমন বিস্মিত, তেমনি হতাশাজনক বলে জানান। -অনলাইন ডেস্ক

সর্বশেষ - ক্যাম্পাস